আগামী মাসে কেবিন ক্রু নিয়োগে বিজ্ঞপ্তি দেবে বিমান। এনিয়ে সব ধরনের প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছে সংস্থার কাস্টমার সার্ভিস বিভাগ। বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করবে বিমানের নিয়োগ বিভাগ। বিমানের পরিচালক (কাস্টমার সার্ভিস বিভাগ) মমিনুল ইসলাম বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। তিনি বলেছেন, বর্তমানে বিমানে কেবিন ক্রু ঘাটতি আছে ২৫০ জন। তবে নিয়োগ শাখা কতজনের জন্য বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করবে সেটা তিনি জানেন না। তিনি বলেছেন, নিয়োগ প্রক্রিয়ায় এবছর পরিবর্তন অাসবে। শুরুতেই এবছর লিখিত পরীক্ষার মাধ্যমে প্রাথমিক প্রার্থী তাালিকা চুড়ান্ত করা হবে। পরবর্তীতে মৌখিক পরীক্ষার মাধ্যমে চুড়ান্ত প্রার্থী তালিকা ঠিক করা হবে।

তবে কাস্টমার সার্ভিস বিভাগের  অারেকটি সুত্র জানান, তারা চেয়েছিলেন দেশের ৭টি বিভাগে প্রাথমিক নির্বাচনী পরীক্ষা অনুষ্টিত হবে। প্রথম পরীক্ষায় চুড়ান্ত বিজয়ীরা ঢাকায় লিখিত পরীক্ষায় অংশ নেবে। ৭ বিভাগের পরীক্ষায়  যেটি দেখা হবে তাহলো কেবিন ক্রু হতে চাইলে কমপক্ষে এইচএসসি পাস হতে হবে। উচ্চতা ৫ ফুট ৬ ইঞ্চি, চোখের দৃষ্টি ৬ বাই ৬, বয়স হতে হবে ১৮ থেকে ৩০ বছরের মধ্যে। শারীরিক গড়ন সুন্দর ও সুদর্শন হতে হবে।সেখান থেকে উত্তীর্ণ প্রার্থীরা লিখিত পরীক্ষায় অংশ নেবে।

বাংলাদেশী নাগরিক পুরুষ ও মহিলাদের মধ্য থেকে এই নিয়োগ দেয়া হবে। জানাগেছে বাংলাদেশ বিমানের এক্সিকিউটিভ ডাইরেক্টর (ইডি) কমিটি এ নিয়োগ প্রস্তাব অনুমোদন করেছে। বিমান পরিচালণা পর্যদেএ প্রস্তাবটি অনুমোদিত হয়েছে। প্রস্তাবটি চূড়ান্ত অনুমোদন করেছে বিমান মন্ত্রণালয়। অাগামী মাসে বিমানের ওয়েবসাইট ও বিভিণ্ন জাতীয় দৈনিকে নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হবে। বিমানের পরিচালক মমিনুল ইসলাম  বলেছেন, বিমান বহরে একের পর এক নতুন উড়োজাহাজ যোগ হয়েছে। কিন্তু এসব উড়োজাহাজ পরিচালণা করার জন্য পর্যাপ্ত কেবিন ক্রু নেই। তাই জরুরী ভিত্তিতে ম্যানেজমেন্ট ক্রু নিয়োগের চিন্তা ভাবনা করছেন।

বিমান সূত্রে জানা গেছে, বর্তমানে বিমানে সব মিলিয়ে ৪৫০ জন কেবিন ক্রু রয়েছেন। এদের মধ্যে এয়ার হোস্টেজ আছেন ১৮০ বাকিরা স্টুয়ার্ড। কিন্তু ৪৫০ জনের মধ্যে গড়ে ২৫০ থেকে ৩০০ জন কেবিন ক্রু ফ্লাইটে থাকেন। বাকিরা নানা ধরনের ছুটি নিয়ে ফ্লাইটের বাইরে থাকছেন। এ হিসাবে বর্তমানে বিমানে কেবিন ক্রুর ঘাটতি রয়েছে ৩০০ থেকে ৩৫০ জন। গত সপ্তাহে বিমান বহরে যুক্ত হয়েছে বোয়িং কোম্পানী অত্যাধুনিক ৭৮৭ ড্রীমলাইনার এয়ারক্রাফট। আগামী বছরের মধ্যে বিমান আরও ২টি উড়োজাহাজ অাসবে। এছাড়া অভ্যন্তরিন ফ্লাইট পরিচালনার জন্য আরো ৩টি ছোট এয়ারক্রাফট বহরে যুক্ত হবে। তখন কেবিন ক্রুর মোট ঘাটতি বেড়ে দাঁড়াবে ৫০০ থেকে ৫৫০ জনে।
বিমানের বিমান ফ্লাইট সার্ভিস বিভাগ সূত্রে জানা গেছে, বর্তমানে যে ৪৫০ জন কেবিন ক্রু রয়েছেন তাদের সবার বয়স ৩৫ বছরের বেশি। কারও কারও বয়স ৪০-৫০ বছর পার হয়ে গেছে। আন্তর্জাতিক আইন ও এয়ারলাইন্স নীতিমালা অনুযায়ী সাধারণত ২৫ বছর পার হলেই সংশ্লিষ্ট কেবিন ক্রু আর ফ্লাইট করতে পারেন না। তবে বিমান কতৃপক্ষ ফ্লাইট পার্সার ও জুনিয়র পার্সার হিসেবে কিছু কেবিন ক্রুকে পদোন্নতি দিলেও অধিকাংশ এখনও কেবিন ক্রু হিসেবে রয়ে গেছেন। এ অবস্থায় বড় ধরনের ক্রু ঘাটতিতে আছে বিমান।

তত্ত্বাবধায়ক সরকারের আমলে বয়স শেষ হয়ে যাওয়ার কারণে ৪০-৫০ জন কেভিন ক্রুকে বাধ্যতামূলক আবসরে পাঠানো হয়। কিন্তু বর্তমান সরকার ক্ষমতায় আসার পর কেবিন ক্রু সংকট দেখা দিলে তাদের প্রায় সবাই আবারও দৈনিক ভিত্তিতে বিমানে যোগদান করেন। এদের কেউ কেউ হাইকোর্টে রিট করে স্থায়ী নিয়োগ লাভ করেন। কিন্তু বয়স না থাকা এসব কেবিন ক্রু নিয়ে বিমান বড় ধরনের ইমেজ সংকটে পড়েছেন।কিছুদিনের মধ্যে তাদের চাকরীর মেয়াদও শেষ হয়ে যাবে। এই অবস্থায় বিমানের কেবিন ক্রু নিয়োগ বাধ্যতামুলক হয়ে দাড়িযেছে।

এদিকে বিমানের কতিপয় কেবিন ক্রুর বিরুদ্ধে অভিযোগ রয়েছে তাদের অনেকে ফ্লাইট নিয়ে বিদেশে গিয়ে নানা অনৈতিক কর্মকাণ্ড, চোরাচালান, চুরি, টাকা পাচার ও অসামাজিক কর্মকাণ্ডে জড়িয়ে পড়েছেন। এ অবস্থায় অনেক কেবিন ক্রুকে বিদেশে ফ্লাইট দেয়া থেকে বিরতে রাখতে হচ্ছে। চোরাচালান ও চুরির অভিযোগে এ পর্যন্ত অর্ধশত কেবিন ক্রুকে চাকরি থেকে বরখাস্ত করা হয়েছে। কিন্তু সংকট এতটাই প্রকোট শেষ পর্যন্ত অনেকের বহিষ্কারাদেশ প্রত্যাহার করতে হয়েছে।