ক্যারিয়ার সেরা বোলিং মিরাজের

December 2, 2018 2:10 pm
Print Friendly, PDF & Email

ঢাকা টেস্টে ওয়েস্ট ইন্ডিজকে ফলোঅন করানোর সিংহভাগ কৃতিত্ব দিতেই হবে ডানহাতি অফ স্পিনার মেহেদি হাসান মিরাজকে। তবুও তিনি ইনিংস শেষে আক্ষেপ করতেই পারেন যে, কেন আর কিছু রান কম দিলেন না কিংবা কেন আর একটি উইকেট বেশি পেলেন না!

আর কিছু রান কম দিলে কিংবা আর একটা উইকেট বেশি পেলেই যে দেশের ইতিহাসের সেরা বোলিং ফিগারের শীর্ষে উঠে যেতে পারতেন ২১ বছর বয়সী এই স্পিনার! তবে সেটি না হলেও, ৫৮ রান খরচায় ৭ উইকেট নিয়ে দেশের তৃতীয় সেরা বোলিং ফিগারের রেকর্ড গড়েছেন ডানহাতি এই অফস্পিনার। যা কি-না তার ব্যক্তিগত সেরা বোলিং ফিগারও।

২০১৬ সালে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে অভিষেক সিরিজেই তিনবার নিয়েছিলেন ছয় উইকেট করে। ওই সিরিজের ঢাকা টেস্টের দ্বিতীয় ইনিংসে ৭৭ রান খরচায় পাওয়া ৬ উইকেটই এতোদিন ধরে কোনো এক ইনিংসে সেরা বোলিং ছিলো মিরাজের। মাঝে ২০১৭ সালে একবারও নিতে পারেননি ইনিংসে পাঁচ উইকেট। ২০১৮ সালে আবারও তিনবার নিলেন পাঁচ উইকেট করে।

যার মধ্যে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে ঢাকা টেস্টেই ১৬ওভারের স্পেলে ৫৮ রানে নিলেন ৭টি উইকেট। ম্যাচের দ্বিতীয় দিন শেষ বিকেলে ফিরিয়েছিলেন কাইরন পাওয়েল, সাই হোপ ও রস্টোন চেজকে। তৃতীয় দিন সকালে টপাটপ শিমরন হেটমায়ার, দেবেন্দ্র বিশু, কেমার রোচ এবং শেন ডাওরিচকে ফিরিয়ে মাত্র ১১১ রানেই সিলগালা করে দিয়েছেন ক্যারিবীয়দের প্রথম ইনিংস।

ম্যাচের প্রথম ইনিংস পর্যন্ত ১৮ টেস্টের মাত্র ৩৩ ইনিংসে বোলিং করেই দেশের ইতিহাসের চতুর্থ সর্বোচ্চ ৭৯টি উইকেট দখল করে ফেলেছেন মিরাজ। ইনিংসে পাঁচ উইকেট নিয়েছেন ছয় বার। এর মধ্যে তিনবার নিয়েছেন ৬ উইকেট ও একবার ৭ উইকেট। দেশের ইতিহাসে তার চেয়ে বেশি উইকেট রয়েছে কেবল সাকিব আল হাসান, মোহাম্মদ রফিক ও তাইজুল ইসলামের।

দেশের ইতিহাসের সেরা বোলিং ফিগার
১/ তাইজুল ইসলাম – ৮/৩৯, প্রতিপক্ষ জিম্বাবুয়ে, ২০১৪
২/ সাকিব আল হাসান – ৭/৩৬, প্রতিপক্ষ নিউজিল্যান্ড, ২০০৮
৩/ মেহেদি হাসান মিরাজ – ৭/৫৮, প্রতিপক্ষ ওয়েস্ট ইন্ডিজ, ২০১৮
৪/ এনামুল হক জুনিয়র – ৭/৯৫, প্রতিপক্ষ জিম্বাবুয়ে, ২০০৫
৫/ শাহাদাত হোসেন রাজীব – ৬/২৭, প্রতিপক্ষ দক্ষিণ আফ্রিকা, ২০০৮

দেশের ইতিহাসের সর্বোচ্চ উইকেট শিকারীর তালিকা 
১/ সাকিব আল হাসান – ২০৫*
২/ মোহাম্মদ রফিক – ১০০
৩/ তাইজুল ইসলাম – ৯৬*
৪/ মেহেদি হাসান মিরাজ – ৮০*
৫/ মাশরাফি বিন মর্তুজা – ৭৮*