সালাম এয়ারের চট্টগ্রাম-মাস্কাট ফ্লাইটের উদ্বোধন

October 9, 2019 8:44 am
Print Friendly, PDF & Email

ওমান ভিত্তিক ‘সালাম এয়ার’ বাংলাদেশে তাদের দ্বিতীয় গন্তব্য শাহ আমানত আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে ‘চট্টগ্রাম-মাস্কাট’ রুটে ফ্লাইট চালু করেছে। এটি তাদের ২৩তম আন্তর্জাতিক রুট।

১৫৩ জন যাত্রী নিয়ে সালাম এয়ারের নতুন একটি এয়ারবাস সোমবার (৭ অক্টোবর) রাত ৮টা ২২ মিনিটে চট্টগ্রাম অবতরণ করে। এরপর সাড়ে ৯টায় ১৩৫ জন যাত্রী ও ১৫৩ কেজি পণ্য নিয়ে মাস্কাটের উদ্দেশে ছেড়ে যায়।
php glass

এ উপলক্ষে বর্ণাঢ্য উদ্বোধন অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশে নিযুক্ত ওমানের রাষ্ট্রদূত তায়েব সেলিম আল আলাওয়ি, সালাম এয়ারের অ্যাকটিং কমার্শিয়াল ডিরেক্টর মাজিন আহমেদ আল সালমান, হেড অব সেলস মোহাম্মদ আল বিমৌকি, শাহ আমানত আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের ব্যবস্থাপক উইং কমান্ডার এবিএম সারওয়ার-ই-জাহান, সালাম এয়ারের বাংলাদেশ কান্ট্রি ম্যানেজার এম শাহাবুদ্দিন, ব্যবস্থাপনা পরিচালক এমএ লতিফ শাহরিয়ার জাহিদি, এয়ারপোর্ট ম্যানেজার ইশতিয়াক হাফিজ প্রমুখ।

উদ্বোধনী ফ্লাইটে আসা দেশে ফেরা বাঁশখালীর মো. পারভেজ জানান, বাজেট এয়ার হওয়ায় তুলনামূলক কম দামে টিকিট পেয়েছি। এখানে খাবার খেতে চাইরে কিনে খেতে হয়। এটি এক দিক দিয়ে ভালো, অপচয় হয় না। আরেকটি কথা হচ্ছে উৎসব পার্বণে টিকিট সোনার হরিণের চেয়েও দামি হয়ে যায়। নতুন এয়ারলাইন এ রুটে আসায় প্রতিযোগিতা বাড়বে, সেবা বাড়বে।

সালাম এয়ারের বাংলাদেশ কান্ট্রি ম্যানেজার এম শাহাবুদ্দিন বলেন, ওমানের সালালার মধ্যে প্রবাসীদের বড় অংশ বৃহত্তর চট্টগ্রামের। ঢাকা থেকে তাদের মাস্কাট যাওয়া কঠিন। তাই চট্টগ্রাম থেকে ফ্লাইট চালুর দাবি ছিলো। চট্টগ্রাম থেকে আমরা এখন সপ্তাহে ৫ চালু করছি। এক মাসের মধ্যে ডেইলি ফ্লাইট চালুর করতে পারবো আশা করি। চট্টগ্রাম থেকে সালালা সরাসরি ফ্লাইট চালুর লক্ষ্যে আলোচনা শুরু করেছি উভয় দেশের এভিয়েশন কর্তৃপক্ষের সঙ্গে। এ ছাড়া কানেকটিং ফ্লাইটে মধ্যপ্রাচ্যের বিভিন্ন গন্তব্যের অনেক যাত্রী সালাম এয়ারের সেবা নিতে পারবে। নতুন নতুন এয়ারবাস কিনছি আমরা।

এক প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন, ভবিষ্যত পরিকল্পনা আছে সিলেট থেকে মাস্কাট ফ্লাইট চালুর। সালাম এয়ার বাজেট এয়ার। গ্লোবালি এটা বেশ জনপ্রিয়তা পাচ্ছে। কারণ এখানে খরচ কম। তবুও প্লেনের মধ্যে প্রটোকলের বাইরে গিয়ে একটি মিল দেওয়ার বিষয়ে আলোচনা করছি আমরা।

সারওয়ার-ই-জামান সালাম এয়ারকে চট্টগ্রামে স্বাগত জানিয়ে বলেন, মাস্কাটের প্রবাসী যাত্রীরা এখন আরও বেশি উপকৃত হবেন। যাত্রী হয়রানি বন্ধে সরকার নানা উদ্যোগ নিয়েছে। এখানে প্রবাসী কল্যাণ ডেস্ক চালু করা হয়েছে। এটি একটি গ্রিন ও ক্লিন এয়ারপোর্ট। দিন দিন আমাদের যাত্রীসংখ্যা বাড়ছে।

এমএ লতিফ শাহরিয়ার জাহিদি বলেন, সিভিল এভিয়েশন, কাস্টমসসহ সংশ্লিষ্ট সবার সহযোগিতায় আমরা দ্রুততম সময়ের মধ্যে মাত্র ১০ দিনে চট্টগ্রাম-মাস্কাট রুটে অপারেশন শুরু করতে পেরেছি। এর ফলে একই রুটের অন্য এয়ারলাইনগুলোর মধ্যে হেলদি কম্পিটিশন হবে। যাত্রীসেবার মান বাড়বে।