সিলেট থেকে লন্ডন ও মানচেস্টারে বিমানের সরাসরি ফ্লাইট এপ্রিলে

February 23, 2020 12:29 pm
Print Friendly, PDF & Email

নিজস্ব প্রতিবেদক

বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন প্রতিমন্ত্রী অ্যাডভোকেট মো. মাহবুব আলী বলেছেন, সিলেটের পর্যটন ক্ষেত্রের যে সম্ভাবনা রয়েছে এবং বর্তমান সরকার পর্যটন ক্ষেত্রে যুগান্তকারী অনেক পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে। পরিকল্পনা অনুযায়ী কাজ করে সিলেটের এই পর্যটনশিল্পকে বাংলাদেশের ব্র্যান্ডিং হিসেবে তৈরি করা হবে। সিলেটের প্রতিটি পর্যটনস্পটকে ডিজিটালাইজেশন, দৃষ্টিনন্দন ও পর্যটকদের সবধরনের সুযোগ-সুবিধার জন্য কাজ করা হবে।

সম্প্রতি  সিলেট নগরীর একটি অভিজাত হোটেলে সিলেট চেম্বারের অব কমার্সের উদ্যোগে সিলেট-লন্ডন-ম্যানচেস্টার রুটে সরাসরি ফ্লাইট চালু এবং ফ্লাইটে পণ্য আমদানি ও রফতানি কার্যক্রম সহজতর করার লক্ষ্যে আয়োজিত গোলটেবিল বৈঠকে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, সিলেট বিমানবন্দরের রানওয়ের কাজ চলছে। সবধরনের অবকাঠামো নতুনভাবে সাজানো হচ্ছে। কাজ শেষ হলে আগামী এপ্রিল মাসে সিলেট-লন্ডন-মানচেস্টার রুটে সরাসরি ফ্লাইট চালু হবে।

উপস্থিত বক্তাদের দাবির প্রেক্ষিতে তিনি বলেন, আগামী জুন মাসে সিলেট-চট্টগ্রাম-কক্সবাজার ফ্লাইট ও চার-পাঁচ মাসের মধ্যে ঢাকা-নিউইয়র্ক-টরেন্টো সরাসরি ফ্লাইট চালু করা হবে। এছাড়া জেদ্দা-সিলেট ও ঢাকা-সিডনি ফ্লাইটও চালু হবে।

মাহবুব আলী বলেন, বঙ্গবন্ধুর হাতেগড়া প্রতিষ্ঠান বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স। স্বাধীনতার পর থেকে বিমান লাভের মুখ দেখেনি। এটা আমাদের রক্তক্ষরণ করত। কিন্তু এখন এ প্রতিষ্ঠানটি লাভের মুখ দেখছে। গত তিন মাসে দুই কোটি টাকা আয় করেছে। এটা আমাদের বড় অর্জন।

বিমানে সিট পাওয়া যায় না, তবুও খালি যায় এ রকম অনিয়ম ছিল- উল্লেখ করে তিনি বলেন, এই রহস্য উদঘাটন করে আমরা নিরসন করেছি। দালালরা অনলাইনে টিকিট কিনে অন্যান্য এয়ারলাইন্সে বিক্রি করত। তাদের শনাক্ত করে ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। এখন কোনো সমস্যা নেই।

তিনি বলেন, ইতোমধ্যে তিনটি অত্যাধুনিক বিমান আনা হয়েছে। আগামী জুন মাসের মধ্যে আরও দুইটি বিমান কেনা হচ্ছে। দেশে নতুন একটি আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর সৈয়দপুরে হচ্ছে। এ নিয়ে দেশে চারটি আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর হলো।

বিমান প্রতিমন্ত্রী বলেন, সিলেটের সাথে বৈদেশিক সম্পর্ক অনেক আগের। বাণিজ্যিক ক্ষেত্রেও বিদেশের সাথে সিলেটের সম্পর্ক অনেক আগের। সিলেট থেকে বাণিজ্যিকভাবে আমদানি-রফতানি বাড়াতে হবে। এতে করে ব্যবসায়ীদের সকল সুযোগ-সুবিধা সৃষ্টির জন্য কাজ করছে বর্তমান সরকার।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, বিমান ও পর্যটন নিয়ে যেকোনো অভিযোগ, ক্ষোভ বা প্রশ্ন থাকলে আমাদের ডেকে বলবেন। আমরা মন্ত্রণালয়ের উচ্চপদস্থসহ সকল কর্মকর্তা-কর্মচারী এসে হাজিরা দিতে প্রস্তুত।

কোম্পানীগঞ্জের ভোলাগঞ্জ থেকে ছাতক পর্যন্ত রেলওয়ের পরিত্যক্ত রোপওয়ে নিয়ে প্রতিমন্ত্রী বলেন, এই রোপওয়েটি পর্যটন মন্ত্রণালয়ের অধীনে আনা হবে। সিলেটের যে রোপওয়ে, যা আগে পাথরের কাজে লাগত। এই প্রজেক্ট এখন তাদের নেই। আমি (রেল মন্ত্রণালয়ের) মন্ত্রীর সাথে আলাপ করব। এটাকে যাতে ট্যুরিজমের আওতায় এনে আমাদের ট্যুরিজমকে আরও প্রমোট করা যায়, সে বিষয়ে চেষ্টা করব। প্রয়োজনে প্রধানমন্ত্রীর সাথেও কথা বলব।

সিলেট চেম্বারের সভাপতি আবু তাহের মো. শোয়েবের সভাপতিত্বে বৈঠকে সম্মানিত অতিথির বক্তব্য রাখেন- বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (সিইও) মো. মোকাব্বির হোসেন।